Home খাস বাত কৃষক আন্দোলনে পাঞ্জাব উত্তাল হলেও বাংলা নিশ্চুপ কেন, উঠছে প্রশ্ন

কৃষক আন্দোলনে পাঞ্জাব উত্তাল হলেও বাংলা নিশ্চুপ কেন, উঠছে প্রশ্ন

মনোজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়: ভারত যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার সংগ্রামে সবথেকে অগ্রণী জাতিটা ছিল বাঙালি আর তার পরেই পাঞ্জাবী। স্বাধীনতার জন‍্য সবথেকে বেশী মূল‍্যও দিয়েছে দুটো জাতিই, খণ্ডিত হয়েছে তাদের মাতৃভূমি। উদ্বাস্তু সমস‍্যা, দিল্লীর বিমাতৃসুলভ আচরণ বারবার আগুন জ্বালিয়েছে এই দুই জাতির রাজ‍্যে, বার বার নানা বিদ্রোহ ঘটেছে। কোথাও খালিস্তানী তো কোথাও নকশাল আন্দোলন। কোথাও বিচ্ছিন্নতাবাদী বা কোথাও রাষ্ট্রদ্রোহী তকমা দিয়ে তাদের দমন করেছে রাষ্ট্র।

 

- Advertisement -

তবুও পাঞ্জাবীরা শেষ হয়েও হয়নি, আজকের দিল্লীর শাসককে নড়িয়ে দেওয়ার স্পর্ধা দেখাচ্ছে তারা। হিন্দি সাম্রাজ‍্যবাদের নতুন শোষণ নীতির ফল যে কৃষিবিল তার বিরুদ্ধে আজ রাজপথ কাঁপিয়ে দিল্লীর উদ্দেশ‍্যে চলেছে লাখো কৃষকের মহামিছিল। শেষে কি হবে জানা না থাকলেও, এই কৃষক বিদ্রোহ নব ইতিহাস লিখবে সন্দেহ নেই।

 

অথচ এই যুক্তরাষ্ট্রের আরও এক উন্নত কৃষিনির্ভর রাজ‍্য বাংলা? তাদের কৃষকের পরিণতি আরও ভয়াবহ হবে এই বিলের ফলে। কারণ বাংলার কৃষকের বেশীরভাগ আজও অসংগঠিত ও প্রান্তিক। এই বড় কর্পোরেটের সহায়ক কৃষিবিল তাদের কোম্পানির মজুরে পরিণত করবে, মুছে যাবে স্বাধীন কৃষক সত্বা। অথচ সেখানে নেই বিদ্রোহের ছিটেফোঁটাও। বাংলার কৃষক ব‍্যস্ত, নেতাদের দলবদল, রঙবদল, ২১ এর বিধানসভা, হিন্দু-মুসলমান নিয়ে।

 

হ‍্যাঁ এটা নীল বিদ্রোহ, তেভাগা, নকশালবাড়ি থেকে কদিন আগের সিঙ্গুর, নন্দীগ্রামের (রাজনৈতিক লাভ যেদিকেই যাক, প্রাথমিক ভাবে কৃষক বিদ্রোহই) সেই বাংলা। আজ তাহলে এই গভীর শূন্যতা কেন? এর উত্তর খুঁজতে গেলে উঠে আসবে ভারতীয় বাঙালির ক্রমাগত কোণঠাসা হতে হতে আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলার সামগ্রিক কাহিনী। উঠে আসবে স্বাধীনোত্তর দীর্ঘ রাজনীতিতে বাঙালির নেতা উঠে না আসার ঘটনা। রাজনীতি অনেক হয়েছে, কিন্তু বাঙালির ভারত যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থার কোন উন্নতি হয়নি ক্রমাগত করুণ হয়েছে তার অবস্থা।

 

বাংলার কৃষকের অবস্থার কিছুটা উন্নয়ন লক্ষ‍্য করা যায় বিগত সিপিআইএম নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট শাসনে, অপারেশন বর্গার সেই সাফল‍্য কিন্তু সার্বিক নয়, গ্রাম বাংলায় চোখ রাখলেই দেখতে পেতেন। বরং কিছুদিনের মধ‍্যেই উদ্ভব হয়েছিল এক নতুন ভূস্বামী সম্প্রদায়ের যাদের পরিচয় পার্টির নেতা। সাধারণ প্রান্তিক চাষীর অবস্থার যে উন্নয়ন হওয়ার কথা ছিল তা হয়নি। পরবর্তীতে কলকাতা কেন্দ্রিক শহুরে এলিট নেতৃত্বের সঙ্গে মাটির যোগ কমেছে আরও।

 

সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম এর কৃষক আন্দোলনের মুখরাও গুরুত্বহীন হয়েছেন পরবর্তী সরকারে। শহুরে নেতৃত্বের অধীনে আজ্ঞাবহ হয়ে থাকতে হয়েছে তাদের। ফলে ক্ষোভ ও অবিশ্বাস ক্রমাগত বেড়েছে গ্রামের কৃষকের মধ‍্যে। এর সঙ্গে রয়েছে আদর্শহীনতা, বাংলার মাটিতে রাজনীতিতে এই মুহূর্তে মূল স্রোতের ডান বা বাম কোন দলই আদর্শিক ভাবে সুদৃঢ় অবস্থানে নেই, সুবিধাবাদ গ্রাস করেছে সবাইকে। ফলে আগামীদিনের ভয়াবহতাটা বোঝা বা সেটা নিয়ে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার মানসিকতা কারোর নেই।

 

পাঞ্জাব থেকে মহারাষ্ট্র সর্বত্র কৃষক আন্দোলনে বামপন্থী শক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিলেও, একদা বাম চেতনার ধাত্রীভূমিতে তাদের উপস্থিতি যতটা সামাজিক মাধ‍্যমে বাস্তবের মাটিতে তার কিছুটাও নয়। এর পিছনে দীর্ঘদিন শাসকের আসনে থেকে মূল আদর্শের চর্চা বন্ধ হওয়ার ফলে বামপন্থার বিস্তারিত চেতনার কথা ভুলে একটা রাজনৈতিক দল যা ভোটে লড়ে ক্ষমতা দখলের জন‍্য, এর বাইরে ভাবতে বাঙালি ভুলে গেছে। বর্তমানেও বাংলার মূল বামদলের কতিপয় সদস‍্য বাদ দিলে সবাই দ্রুত ক্ষমতায় ফিরতে নানান শর্টকাটের কথা ভাবছে, কারণ দীর্ঘ আদর্শিক লড়াইয়ের জন‍্য তারা প্রস্তুত নয়।

 

এরফলে বাংলার কৃষককে সংগঠিত করা তাদের বিশ্বাস অর্জন করার মতো কাজে তাদের উৎসাহ কম। বর্তমান ডানপন্থী শাসক যারাও মূলত কৃষকের কাঁধে ভর দিয়েই ক্ষমতায় এসেছিলো, তারাও ক্ষমতায় টিকে থাকার অঙ্ক কষতেই ব‍্যস্ত। যে কৃষিবিল বিরোধী সভা মিছিল তারাও করেছে তা শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী যুদ্ধেই পরিণত হয়েছে, নতুন কথা শোনাতে পারেনি, কৃষককে আস্থা দিতে পারেনি। সেই আন্দোলনকে ব‍্যাপকতা দেওয়ার কোন চেষ্টা হয়নি পাছে নেতৃত্ব হারাতে হয়। আবার কদিন আগেই কৃষিবিল বিরোধিতা করে, সেই বিলের সৃষ্টিকর্তাদের সঙ্গে ঘোরার দৃশ‍্যও অমিল নয়, এ এক চরম আত্মপ্রবঞ্চনা ও আদর্শহীনতার দৃষ্টান্ত। ফলে কেউই কৃষকের বন্ধু হতে পারেনি।

 

বাংলার কৃষককুল আজ ভয়াবহ রকমের অসহায়, এই সুযোগে কৃষকবিরোধী এবং সার্বিকভাবে বাঙালি বিরোধী দিল্লীর হিন্দি সাম্রাজ‍্যের দালালরাই গ্রামে গ্রামে ঘাঁটি গাড়ছে। বাঙালিকে তাৎক্ষণিক লাভের গল্প শুনিয়ে কাছে টানছে। অজান্তেই খাল কাটছে বা‌ংলার কৃষক, যে খাল দিয়ে একদিন সেচের জল নয় আসবে রক্তলোভী কুমীরের দল। চরকম দিশাহীনতায় আত্মঘাতী হতে চলেছে বাংলার কৃষককুল, আসলে সমগ্র জাতিটারই একই অবস্থা, নাবিকহীন জাহাজের মতো, কৃষকরা তো আর সমাজ বহির্ভূত নয়।

 

এই মুহূর্তে বাংলার রাজনৈতিক আকাশে একমাত্র আশার আলো বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ। আজ কিন্তু গোটাকতক অল্পবয়সী ছেলেমেয়ে সামাজিক মাধ‍্যমে চিৎকার করছে বিষয়টা ঠিক তা নয়। ছড়িয়ে পড়ছে জাতীয়তাবাদের ডাক, ভূমিপুত্র সংরক্ষণের দাবি জোরালো হচ্ছে, বা‌ংলার খনিজ থেকে ফসলে বাঙালির অধিকারের দাবি উচ্চারিত হচ্ছে সর্বত্র। প্রথম সারির সংবাদ মাধ‍্যমেও জায়গা করে নিচ্ছে বাঙালির অধিকারের দাবি। এখানেও একটা ভয় আছে, শত্রুও কিন্তু রঙ বদলে বন্ধু সাজতে চাইবে। বাঙালির বন্ধুর ভেক ধরে ঘরে ঢুকতে চাইবে। এখানেও দরকার প্রতিরোধ।

 

মূল দলগুলো ব‍্যস্ত থাকুক ক্ষমতাদখলের ছক নিয়ে, জাতীয়তাবাদী বাঙালিকে এইসময় ছড়িয়ে পড়তে হবে গ্রামে গ্রামে, জ্বালাতে হবে চেতনার আলো। “দলের ঊর্ধে জাতি” এই মন্ত্রে ঐক‍্যবদ্ধ করতে হবে বাংলার কৃষককে। গ্রামের মানুষই পথ দেখাবে আগামীর বাংলাকে। হয়তো আজ নয় কিন্তু কাল বাংলার কৃষকও পা মেলাবে পাঞ্জাবের সঙ্গে। একদিন সব অহিন্দি জাতিই পা মেলাবে এই দিল্লীমুখী মিছিলে, ভেঙে পড়বেই হিন্দি সাম্রাজ‍্যবাদের বুনিয়াদ। কৃষিনির্ভর ভারতীয় যুক্তরাষ্ট্রে অন্নদাতা কৃষকরাই লিখবে নতুন ইতিহাস।

- Advertisement -
- Advertisment -

সবচেয়ে জনপ্রিয় সংবাদ

বাঁকুড়ার পুরসভা তৃণমূলের পার্টি অফিস, অভিযোগে ডেপুটেশন জমা বাম-কংগ্রেসের

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া: পুরসভার দফতর তৃণমূলের পার্টি অফিসে পরিণত হয়েছে অভিযোগ তুলে বাঁকুড়া সদর মহকুমাশাসককে বাম ও গণতান্ত্রিক জোটের ব্যানারে ডেপুটেশন দিল বাম-কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার বিশুদ্ধ...

মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া চাল ‘ভিক্ষে’ করছে বিজেপি, দাবি শ্যামল সাঁতরার

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া: দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার দেখানো পথে এবার বাঁকুড়া জেলা জুড়ে কৃষক সুরক্ষা যাত্রার কর্মসূচি হিসেবে বাড়ি বাড়ি মুষ্টি ভিক্ষা...

লকডাউনে দুঃস্থদের মাংস বিলি করলেন তৃণমূল কাউন্সিলর

ইংরেজবাজার: করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় দেশ জুড়ে জারি হয়েছে লকডাউন। যার কারণে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা...

আইপিএল ২০২০-এর টাইটেলের সঙ্গে যুক্ত হল ‘ড্রিম ১১’

নয়াদিল্লি: ভারতের অন্যতম সেরা টুর্নামেন্ট ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল)-এর দামামা বেজে গেছে। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হতে চলেছে এবারের এই মহা টুর্নামেন্ট। দেশের মাটিতে...
- Advertisment -

খবর এই মুহূর্তে

আপাতত স্থিতিশীল সৌরভ, চলছে নজরদারি

তানিয়া বন্দ্যোপাধ্যায় পাল: অ‍্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়েছে। আপাতত স্টেন্ট বসানো নিয়ে কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারলেন না চিকিৎসকেরা। তাই কড়া নজরদারিতে রেখে তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখার...

বেলুড়ে গুলি-কান্ডে অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবি তুললেন অর্জুন

নিজস্ব সংবাদদাতা, হাওড়া: বেলুড়ে গুলি-কান্ডে অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবিতে এবং 'টিএমসি-পুলিশ' আঁতাতের অভিযোগে হাওড়ায় পুলিশ কমিশনারের অফিসের সামনে বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক...

বড় ম্যাচের আগে আরও এক উইকেট পতন TMC-র, বিজেপিতে বৈশালী

খাসখবর ডেস্ক: দলে থেকে দলবিরোধী কাজের জন্য তাঁকে বহিস্কার করেছিল তৃণমূল৷ সূত্রের খবর বিজেপিতে যোগ দিলেন বৈশাখী ডালমিয়া৷ দলে থেকে কাজ করতে দেওয়া না...

করোনার অজুহাতে কোটি কোটি টাকা খাচ্ছে তৃণমূল, দাবি অর্জুনের

নিজস্ব সংবাদদাতা, ব্যারাকপুর: বকেয়া বেতনের দাবিতে ভাটপাড়া পুরসভার অস্থায়ী সাফাই কর্মীদের আন্দোলন চতুর্থ দিনের জেরে ভাটপাড়া পুরসভার পুর নাগরিক পরিষেবা অচল। রাজ্যে ১১১ পুরসভা...